সোমবার, ডিসেম্বর ১৭, ২০১৮, ৫:০৫:৩৭ অপরাহ্ণ
Home » সারাদেশ » রংপুর » সরকারী শীতবস্ত্র কেউ পায়নি ঃ চারি দিকে হাহাকার দিনাজপপুরে শীতের আক্রমন থেকে অসহায় মানুষকে বাচাতে এগিয়ে এসেছে রুস্তম এন্টারপ্রাইজ

সরকারী শীতবস্ত্র কেউ পায়নি ঃ চারি দিকে হাহাকার দিনাজপপুরে শীতের আক্রমন থেকে অসহায় মানুষকে বাচাতে এগিয়ে এসেছে রুস্তম এন্টারপ্রাইজ

স্টাফ রির্পোটার,দিনাজপুর ঃ হিমেল বাতাস, কুয়াশা ও কনকনে শীত মানুষের শর্য্যর বাঁধ ভেঙ্গে দিয়েছে। ছিন্নমূল মানুষ শীতবস্ত্র সংগ্রহ করে শীত নিবারনের চেষ্টা চালাচ্ছে। তবে বিপদগ্রস্থ হয়ে পড়েছে মধ্যবিত্ত ও অভাবী সম্ভ্রান্ত পরিবারের মানুষ।
জানা গেছে, এ মুহূর্তে শীতের এ আক্রমনকে প্রতিহত করতে আত্মমানবতার সেবার প্রত্যয় নিয়ে শীতবস্ত্র বিতরনে নেমে পড়েছেন রুস্তম এন্টার প্রাইজের সত্বাধীকারী ও দৈনিক অন্তরকন্ঠের প্রকাশক আলহাজ্ব রুস্তম আলী। তিনি প্র্য় এক হাজার কম্বল বিতরন করেছেন অসহায় ও গরীব পরিবারের মাঝে। দিনাজপুরে সাম্প্রতিককালে ভয়াবহ বন্যায় সর্বশান্তদের শীত নিবারনে কম্বল, চাদরসহ শীতবস্ত্র বিতরন শুরু করেছেন। গতকাল রোববার দিনাজপুর একাডেমী হাইস্কুল মাঠে শীতবস্ত্র বিতরনকালে আলহাজ্ব রুস্তম আলী বলেন, সমাজে কিছু মধ্যবিত্ত ও সম্ভ্রান্ত পরিবারের অভাবী পরিবার রয়েছেন। যারা লাইনে দাড়িয়ে শীতবস্ত্র ও রিলিফ সংগ্রহ করতে পারে না। এ সব মানুষকে কুড়িয়ে কুড়িয়ে আঘাত করে অভাব আর কনকনে শীত। চেপে বসে কনকনে শীতের মত অভিশাপ। আত্মমানবতার সেবায় এগিয়ে আসতে হবে দানশীল ও মধ্যবিত্ত মানুষদের। রুস্তম আলী তারই দুষ্টান্ত রেখে যাচ্ছেন।সাম্প্রতিককালের ভয়াবহ বন্যায় আশ্রয়হীন ১৪০টি পরিবারকে নিজ অর্থে বাড়ি তৈরী করে দেয়াসহ অন্যান্য সহায়তা প্রদান করেছেন। বন্যা ও কনকনে শীতে সরকার শীতবস্ত্র ও ত্রান সামগ্রী বিতরন করেছেন। জেলা ত্রান ও পুর্ণবাসন কর্মকর্তা মোখলেছুর রহমান জানান, জেলায় এযাবত প্রায় ৮০ হাজার কম্বল ও ৩ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার বিতরন হয়েছে। কিন্তু বিভিন্ন এলাকায় খোজ নিয়ে জানা যায় কেউ কোন প্রকার শীতবস্ত্র পায়নি। তাদের বক্তব্য ক্ষমতাসীন দলের নেতারাই ভাগবাটোয়ারা করে নিয়েছে গরীব মানুষের প্রাপ্প। কিন্তু বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, শীতে আক্রান্ত মানুষের জনসংখ্যা প্রায় ৬ লক্ষাধিকের বেশি। সরকারের পাশাপাশি আত্মমানবতার সেবায় এগিয়ে না আসলে এই কনকনে শীতের আক্রমন থেকে শীর্তাত মানুষদের রক্ষা করা খুব কঠিন হয়ে পড়বে। তাই শীর্তাত মানুষের আহবান আত্মমানবতার সেবায় এগিয়ে আসা প্রয়োজন দানবীরদের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *