বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৯, ২০১৮, ৫:১২:১১ অপরাহ্ণ
Home » আন্তর্জাতিক » সন্ত্রাসী হামলা নিয়ে অভিযোগ করার অধিকার ফ্রান্সের নেই: এরদোগান
(FILES) In this file photo taken on January 05, 2018 French President Emmanuel Macron (R) and his Turkish counterpart Recep Tayyip Erdogan walk past each other during a joint press conference at the Elysee Palace in Paris. Turkish President Recep Tayyip Erdogan on March 30, 2018 said he was "extremely saddened" by France's position after Paris offered to mediate with the Syrian Democratic Forces dominated by a Kurdish militia deemed a terrorist group by Ankara. "We are extremely saddened by France's... wrong stance on this issue," Erdogan said during a speech in Ankara after French President Emmanuel Macron said on Thursday that he hoped "a dialogue" could be established between Ankara and the SDF. / AFP PHOTO / POOL / LUDOVIC MARIN

সন্ত্রাসী হামলা নিয়ে অভিযোগ করার অধিকার ফ্রান্সের নেই: এরদোগান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সিরিয়ায় কুর্দি যোদ্ধা ও আঙ্কারার মধ্যে ফ্রান্সের সমঝোতার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান। কুর্দি সশস্ত্র যোদ্ধাদের আঙ্কারা সন্ত্রাসী হিসেবে বিবেচনা করে আসছে।

ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাকরন কুর্দি সন্ত্রাসীদের একটি প্রতিনিধি দলকে প্যারিসে আমন্ত্রণ জানিয়ে সিরীয় ডেমোক্র্যাটিক ফোর্সেস (এসডিএফ) ও তুরস্ক সরকারের মধ্যে মধ্যস্থতার প্রস্তাব দিয়েছেন।-খবর আলজাজিরার।

এর একদিন পর শুক্রবার তা প্রত্যাখ্যান করে রাজধানী আঙ্কারায় এক বৈঠকে ম্যাকরনকে উদ্দেশ্য করে এরদোগান বলেন, একটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সঙ্গে তুরস্কের মধ্যস্থতা করতে আসার আপনি কে?

এসডিএফকে কুর্দি পিপলস প্রটেকশন ইউনিটস (ওয়াইপিজি)পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে আসছে।

তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, যারা সন্ত্রাসী সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের আমন্ত্রণ জানায়, যাদের দেশে এই সন্ত্রাসীরা স্বাধীনভাবে কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতে পারে, তাদের ব্যাপারে সতর্ক হওয়া দরকার। তুরস্কের বিরুদ্ধে তারা শত্রুতা ছাড়া আর কিছু করছে না।

সিরিয়ায় সক্রিয় কুর্দি ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়ন পার্টি (পিওয়াইডি) ও তাদের সশস্ত্র শাখা ওয়াইপিজিকে সন্ত্রাসী সংগঠন মনে করে তুরস্ক। তাদের সঙ্গে কুর্দি ওয়ার্কাস পার্টিরও (পিকেকে) সংশ্লিষ্টতা রয়েছে।

কুর্দিরা কয়েক দশক ধরে তুরস্কের বিরুদ্ধে রক্তক্ষয়ী বিদ্রোহে লিপ্ত রয়েছে।

তুর্কি নেতা বলেন, পিওয়াইডি ও ওয়াইপিজির প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকের পর নিজের মাটিতে কোনো সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর হামলা নিয়ে অভিযোগ করার অধিকার ফ্রান্সের নেই।

যারা সন্ত্রাসীদের সঙ্গে বিছানা ভাগাভাগি করেন এবং যারা তাদেরকে নিজেদের প্রাসাদে আমন্ত্রণ জানান, আগে-পরে যখনই হোক, তারা তাদের ভুলগুলো টের পাবেন বলে জানান এরদোগান।

তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, সিরিয়া ও ইরাক থেকে পালিয়ে যাওয়া সন্ত্রাসীতে ফ্রান্স যখন পূর্ণ হয়ে যাবে, তখন আমাদের কাছে সাহায্য চাওয়ার সাহসও তাদের থাকবে না।

//এল//

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *