মঙ্গলবার, মে ২২, ২০১৮, ৭:৩৮:৫৬ অপরাহ্ণ
Home » আন্তর্জাতিক » রোহিঙ্গা সংকট: মিয়ানমারে নিষেধাজ্ঞা আরোপের ইঙ্গিত যুক্তরাষ্ট্রের

রোহিঙ্গা সংকট: মিয়ানমারে নিষেধাজ্ঞা আরোপের ইঙ্গিত যুক্তরাষ্ট্রের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন এই প্রথমবারের মতো মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর সে দেশের সেনাবাহিনীর অভিযানকে ‘এথনিক ক্লিনসিং’ বা জাতিগত নিধন বলে অভিহিত করেছেন।

তিনি বলেছেন, এর ফলে রোহিঙ্গারা ভয়াবহ নির্যাতনের শিকার হয়েছে এবং এর জন্য যারা দায়ী তাদের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র নির্দিষ্টভাবে কিছু নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার কথা বিবেচনা করছে।

সেপ্টেম্বর মাসে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান জেইদ রাদ আল হুসেইনও মিয়ানমারের বিরুদ্ধে জাতিগত নিধন চালানোর অভিযোগ এনেছিলেন।

টিলারসন এমন এক সময়ে এ মন্তব্য করলেন, যখন কয়েকদিনের মধ্যেই পোপ ফ্রান্সিসের মিয়ানমার সফরে যাচ্ছেন।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী তার বিবৃতিতে বলেছেন, আমাদের হাতে যা তথ্য এসেছে তা খতিয়ে দেখে ও গভীরভাবে বিশ্লেষণ করলেই এটা পরিষ্কার হয়ে যাচ্ছে, উত্তর রাখাইন প্রদেশের পরিস্থিতি রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে একটা জাতিগত নিধনযজ্ঞ ছাড়া আর কিছুই নয়।

তিনি বলেন, বার্মার (মিয়ানমারের পুরানো নাম) সেনাবাহিনী, নিরাপত্তা বাহিনী ও স্থানীয়দের নির্যাতনের ফলে ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। এর ফলে লাখ লাখ পুরুষ, নারী ও শিশু বার্মায় তাদের বাড়িঘর ছেড়ে বাংলাদেশে পালিয়ে গিয়ে আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়েছে।

তিনি বলেন, রাখাইন রাজ্যের ঘটনায় স্বাধীন তদন্ত করতে চায় যুক্তরাষ্ট্র এবং এর ভিত্তিতেই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে।

তিনি আরো বলেন, এই নির্যাতনের ঘটনায় দায়ীদের অবশ্যই জবাবদিহিতার আওতায় আনতে হবে।

টিলারসনের এই মন্তব্য সাম্প্রতিক দিনগুলোতে মিয়ানমারের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের কঠোর অবস্থানকেই প্রতিফলিত করেছে। গত সপ্তাহে একদিনের মিয়ানমার সফরে গিয়ে তিনি বলেছিলেন, রোহিঙ্গাদের উপর ব্যাপক নির্যাতনে খবরে ওয়াশিংটন গভীরভাবে উদ্বিগ্ন।

মার্কিন সিনেটন জেফ মার্কলের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল খুব সম্প্রতি বাংলাদেশ ও মিয়নমার ঘুরে গিয়েছেন। ওই প্রতিনিধিদলের সদস্যরা বলেছেন, তারা রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন, হত্যা, খুন ও ধর্ষণের যে সব ঘটনা শুনেছেন তা তাদের গভীরভাবে বিচলিত করেছে।

পোপ ফ্রান্সিসও আগামী ২৬ নভেম্বর মিয়ানমার সফরে যাবেন। ভ্যাটিকান জানিয়েছে, পোপ ওই সফরে মিয়ানমারের সেনাপ্রধান জেনারেল মিন অং লেইং ও স্টেট কাউন্সিলর আউং সান সুচির সঙ্গে বৈঠক করবেন।

ভ্যাটিকানের এক মুখপাত্র বুধবার জানিয়েছে, পোপ বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকাও সফর করবেন এবং তিনি সেখানে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সাথে দেখা করবেন। সূত্র: বিবিসি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *