শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৮, ৮:৫১:২৬ অপরাহ্ণ
Home » অন্যান্য » মির্জাপুরে হাসপাতালের ঢুকে চিকিৎসকের উপস্থিতিতে রোগীর উপর সন্ত্রাসী হামলা দুই দিনেও অপরাধীরা গ্রেফতার হয়নি

মির্জাপুরে হাসপাতালের ঢুকে চিকিৎসকের উপস্থিতিতে রোগীর উপর সন্ত্রাসী হামলা দুই দিনেও অপরাধীরা গ্রেফতার হয়নি

মীর আনোয়ার হোসেন টুটুল, স্টাফ রিপোর্টারঃ-
সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত এক অসুস্থ্য রোগীর উপর এক দল সন্ত্রাসী চিকিৎসকের উপস্থিতিতে হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার ৫০ শয্যা বিশিষ্ট জামুর্কি সরকারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্েরর ভিতরে এ অমানবিক ঘটনা ঘটেছে।ঘটনার দুই দির পরও পুলিশ অপরাধীদের গ্রেফতার করতে পারেনি।আজ শুক্রবার অসুস্থ্য ও হামলার শিকার আসিক(২০) পরিবার হাসপাতালে সাংবাদিকদের কাছে এ অভিযোগ তুলে ধরেন।
মির্জাপুর থানায় লিখিত অভিযোগ ও পুলিশ সুত্র জানায়, আসিকের পিতার াম মো. জমনু মিয়া।বাড়ি দেলদুয়ার উপজেলার লাউহাটি গ্রামে।গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের সংযোগ রোড পাকুল্যা-লাউহাটি সড়কের গল্লী এলাকায় আসিক(২০) ও অপর দিক থেকে আসা নুরনবী(২২) এর মোটর সাইকেলের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়।সংঘর্ষে আসিক গুরুতর ভাবে ও নুরনবী সামান্ন আহত হন।নুরনবী স্থানীয় এলাকায় চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি চলে যান।গুরুতর অবস্থায় আসিকেকে প্রথমে অজ্ঞাত হিসেব স্থানীয় লোকজন উদ্ধার করে জামুর্কি সরকারী হাসপাতালে জরুরী বিভাগে ভর্তি করে।এদিকে নুরনবী আহত হয়েছে এই ঘটনা তার আত্বীয় স্বজন জানতে পেরে বিকেলে জামুর্কি হাসপাতালে ছুটে এসে চিকিৎসক মো. আওলাদ হোসেনের উপস্থিতিতে আসিকের উপর হামলা চালায়।হামলার নের্তৃত্ব দেন জামুর্কি গ্রামের মজিবর রহমানের ছেলে মজনু(৩৬) ও তার সহযোগিরা বলে হাসপাতাল ও আসিকের পরিবার অভিযোগ করেন।হামলায় আসিকের অবস্থার আরও অবনতি হলে চিকিৎসকগন তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমুদিনী হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন।বর্তমানে আসিকের চিকিৎসা চলছে কুমুদিনী হাসপাতালে।
এ দিকে এই হামলাকারীদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবীতে আসিকের পিতা মো. মজনু মিয়া বাদী হয়ে মির্জাপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।অভিযোগের পর মির্জাপুর থানার পুলিশ অফিসার এসআই কমল সরকার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।কিন্তু পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে হামলাকারী মজনু, নুরনবীসহ তাদের সহযোগিরা পালিয়ে গেছে বলে জানা গেছে।
এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানার ভাপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ কে এম মিজানুল হক মিজান বলেন, অভিযোগের পর হামলাকারীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *