মঙ্গলবার, এপ্রিল ২৪, ২০১৮, ১:৪৬:২৮ অপরাহ্ণ
Home » অন্যান্য » মির্জাপুরে হাইওয়ে থানার সার্জেন্টকে প্রত্যাহারের দাবীতে ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের বিক্ষোভ মিছিল

মির্জাপুরে হাইওয়ে থানার সার্জেন্টকে প্রত্যাহারের দাবীতে ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের বিক্ষোভ মিছিল

মীর আনোয়ার হোসেন টুটুল, স্টাফ রিপোর্টারঃ-
পুলিশের ক্ষমতার দাফট দেখিয়ে নিরীহ শ্রমিকদের উপর হামলা ও পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছে হাইওয়ে থানার পুলিশ সার্জেন্ট মো. জামান মিয়া(৪৫)।গুরুতর অবস্থায় একজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।ঘটনার প্রতিবাদ এবং সার্জেন্ট জামানকে দ্রুত প্রত্যাহার ও দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবীতে বিক্ষুব্দ ব্যবসায়ী ও শ্রমিকরা বিক্ষোভ মিছিল করেছে।এ সময় বিক্ষুবকারীরা ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক অবরোধের চেষ্টা করে।পুলিশ খবর পেয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে এনেছেন।আজ মঙ্গলবার টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার দেওহাটা বাস স্টেশন এলাকায় পুলিশ ফাঁড়ির সামনে এ ঘটনা ঘটেছে।
দেওহাটা বাজারের ব্যবসায়ী ও গোড়াই ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাহিত সদস্য(মেম্বার) মো. জামান ও মো. শাহজাহার মিয়া অভিযোগ করেন, আজ মঙ্গলবার ভোর রাতে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ধেরুয়া এলাকায় একটি মালবাহী ট্রাক রাস্তার উপর বিকল হয়। ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে টহলরত গোড়াই হাইওয়ে থানার বেশ কয়েক পুলিশ সদস্য দেওহাটা বাজারে এসে শ্রমিকদের নির্দেশ দেন ট্রাক আনলোড করার জন্য।কিন্ত বাজারে মালামাল আনলোড করার শ্রমিকক না থাকায় দুই তিনজন শ্রমিক ঐ ট্রাকে আনলোড করতে অস্বীকার করে।এ সময় হাইওয়ে থানার পুলিশ সার্জেন্ট মো. জামান ও কয়েকজন পুলিশ সদস্য ক্ষিপ্ত হয়ে নিরীহ শ্রমিকদের উপর লাঠিসোঠা নিয়ে হামলা চালায়।এ সময় দেওহাটা গ্রামের কুজরত আলীর পুত্র সুলতান সরদার(৫০) গুরুতর আহত হন।স্থানীয় লোকজন ঘটনা দেখে সুলতানকে উদ্ধার করে মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতালে ভর্তি করে।ঘটনার পর পরই পুলিশ সদস্যরা পালিয়ে যায়।
এদিকে এই ঘটনা দেওহাটা বাজারে ছড়িয়ে পরলে শতশত ব্যবসায়ী ও শ্রমিক জড়ো হয়ে হাইওয়ে পুলিশ সাজেন্ট মো. জামান ও তার সহযোগিদের দ্রুত প্রত্যাহার ও দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল বের করে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক অবরোধের চেষ্টা করে।মির্জাপুর থানা পুলিশ খবর পেয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখেন।এ ব্যাপারে পুলিশ সার্জেন্ট মো. জামানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তাদের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে।এ জন্য আমি অনুতপ্ত।
এ ব্যাপারে গোড়াই হাইওয়ে থানার ওসি মো. খলিলুর রহমান পাটোয়ারীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পুলিশ সার্জেন্ট মো. ফজলুর রহমান বলেন, ঘটনার পর ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের সঙ্গে আলোপ আলোচনা করে ঘটনার মিমাংশার চেষ্টা করা হচ্ছে এবং দোষী পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধেও তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।আহত শ্রমিককে হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *