বুধবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৮, ১০:২৬:০০ অপরাহ্ণ
Home » অন্যান্য » মির্জাপুরে মিথ্যা তথ্য দিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের প্রখর রৌদে মানব বন্ধনের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

মির্জাপুরে মিথ্যা তথ্য দিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের প্রখর রৌদে মানব বন্ধনের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

মীর আনোয়ার হোসেন টুটুল,স্টাফ রিপোর্টারঃ-
ষড়যন্ত্র মুলক ভাবে মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য দিয়ে কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীদের প্রখর রৌদে দাঁড় করিয়ে মানব বন্ধন করার প্রতিবাদ জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন স্বেচ্ছাসেবী বেসরকারী সংস্থা উদয় এনজিওর নির্বাহী পরিচালক দে সুধীর চন্দ্র।আজ শুক্রবার টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে উপজেলা সদরের বাইমহাটি এলাকায় উদয় এনজিওর প্রধান কার্যালয়ের মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন উদয় এনজিওর মালিক, পরিচালক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্ধ।সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন এনজিওর নির্বাহী পরিচালক দে সুধীর চন্দ্র।এ সময় উদয় এনজিওর পরিচালক(প্রোগ্রাম) খান এ মাজেদ এবং মাইক্রেডিট পরিচালক(প্রধান) মো. আব্দুল মালেক উপস্থিত ছিলেন।
লিখিত বক্তব্যে দে সুধীর চন্দ্র বলেন,উদয় এনজিও ১৯৯৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর দেশের পিছিয়ে পড়া দরিদ্র জনগোষ্ঠির আর্থ সামাজিক ভাগ্য উন্নয়নের জন্য নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে।টাঙ্গাইল জেলাসহ দেশের ১১ টি জেলায় বিভিন্ন উন্নয়নমুখী কর্মকান্ড পরিচালিত হয়ে আসছে।ক্ষুদ্র ঋণের পাশাপাশি, মৌলিক সাক্ষরতা প্রকল্প, ভিজিডি, এইচআইভি, এইডস, প্রতিরোধ, কারিগরি শিক্ষা প্রকল্প, বনায়ন, স্যানিটেশন, গ্রহায়ন, মাতৃত্বকাল ভাতা প্রদান, বি-সেটেলমেন্ট,সহ বহু উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করছে।উদয় টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টার এবং বিভিন্ন অফিসে কয়েক হাজার শ্রমিক কর্মবাচী কাজ করে জীবন জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন।প্রতিষ্ঠানের সুনাম খুন্ন করার জন্য এই এনজিওর সাবেক শাখা ব্যবস্থাপক রনজিদ কুমার খাঁ(৪৫)ও তার কয়েকজন সহযোগি যোগসাজস করে উদয় এনজিওর নামে ভুয়া বই, কাগজপত্র ছাপিয়ে ও আমানতের নামে গ্রাহকদের সঙ্গে প্রতারনা করে প্রায় ৫৬ লাখ টাকা আতœসাত করে নানা অযুহাত দেখিয়ে হঠাৎ এনজিও থেকে চলে যান।টাকা নেওয়ার ঘটনাটি প্রথমে জানা জানি না হলেও পরে হিসেব নিকেশ ও অডিট করে এনজিওর কর্মকর্তরাগন জানাতে পারেন রনজিত কুমার খা কৌশলে ও প্রতারনার মাধ্যমে উদয় এনজিওর ও বিভিন্ন গ্রাহকদের কাছ থেকে বিপুল অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়ে গেছে।এ নিয়ে এলাকায় প্রথমে স্থানীয় ভাবে বিচার হলে এক শ্রেণীর প্রভাবশালী মাতাব্বর রনজিতের পক্ষ নিয়ে ৫৬ লাখ টাকা আতœসাতের ঘটনা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা করেন।টাকা উত্তোলনের জন্য পরে নিরুপায় হয়ে উদয় এনজিওর পরিচালক(প্রোগ্রাম) খান এ মাজেদ বাদী হয়ে রনজিদ কুমার খা, শান্তিব্রত সরকার ও প্রকাশ চন্দ্র তরফদারের নামে কোর্টে মামলা দায়ের করেন।মামলা হওয়ার পর রনজিত কুমার খা গ্রেফতার হন।
লিখিত বক্ত্যব্যে তিনি বলেন,আসামীরা জামিনে বের হয়ে এসে আমাকে অপহরণ ও হত্যার হুমকি দিয়ে যাচ্ছে।অপহরন ও হত্যার হুমকি দেওয়ায় আমি ও আমার পরিবার চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।নিরাপত্তা চেয়ে তিনি মির্জাপুর থানায় একটি সাধারন ডায়রী করেছেন।ডায়রী করার পর মির্জাপুর থানার সেকেন্ড অফিসার মো. মনিরুজ্জামান মুন্সি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ঘটনার সত্যতা পেয়ে তাদের বিরুদ্ধে কোর্টে প্রতিবেদন দাখিল করেছেন।
এদিকে প্রকৃত ঘটনা আড়াল করতে একটি প্রভাবশালী মহলের যোগসাজসে গতকাল বৃহস্পতিবার বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য পরিবেশন করে প্রশাসনের অনুমুতি না নিয়ে প্রখর রৌদে দাড় করিয়ে সাজানো মানব বন্ধন করেছেন এনজিওর সুনাম নষ্ট করার জন্য।দে সুধীর চন্দ্র ছাত্র-ছাত্রীদের ব্যবহার করে মানব বন্ধনের ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ এবং অভিযুক্তদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন।
বিদ্যালয়ের প্রধান প্রধান শিক্ষক মো. মহিউদ্দন দেওয়ান বলেন, আমি প্রকৃত ঘটনা অবগত নই।ম্যানেজিং কমিটি বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে এই মানব বন্ধনের আয়োজন করে ছিলেন।অভিযুক্ত রনজিদ কুমার খাঁ, শান্তিব্রত সরকার ও প্রকাশ তরফদার বলেন, আমাদের নামে অভিযোগ হয়েছে।ঘটনার প্রতিবাদে স্কুল কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে ছাত্র-ছাত্রীরা মানব বন্ধন করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *