সোমবার, জুন ১৮, ২০১৮, ১১:৫৩:২২ পূর্বাহ্ণ
Home » অন্যান্য » মির্জাপুরে বালু উত্তোলন নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে এক যুবক ও ট্রাক চাপায় স্কুল ছাত্র নিহত

মির্জাপুরে বালু উত্তোলন নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে এক যুবক ও ট্রাক চাপায় স্কুল ছাত্র নিহত

মীর আনোয়ার হোসেন টুটুল, স্টাফ রিপোর্টারঃ-
টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে বংশাই নদীতে অবৈধভাবে ড্রেজার ও ভেক্যু বসিয়ে বালু উত্তোলন নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে শামীম মিয়া(৩০) নামে এক যুবক নিহত হয়েছে।তার পিতার নাম মো. নুরু মিয়া।বাড়ি উপজেলার গোড়াই খামারপাড়া গ্রামে।এছাড়া ট্রাক চাপায় সাগর(১০)এক স্কুল ছাত্র নিহত হয়েছে।
মির্জাপুর থানা পুলিশ ও ও এলাকাবাসি জানায়, বংশাই নদীর নদীর কোদালিয়া ও খামারপাড়া এলাকায় শামীম ও সাহাদত গং এবং একই গ্রামের শফি মিয়া, বাবুল, মজনু, জনি ও জুয়েল গংরা ড্রেজার ও ভেক্যু বসিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে অবৈধভাবে মাটি এবং বালু উত্তোলন করে আসছিল।এনিয়ে দুই গ্রুপের মধ্যে বিরোধকে কেন্দ্র করে থানায় মামলাও হয়।আজ বৃহস্পতিবার ঘটনা মিমাংশার জন্য থানায় বসার কথা ছিল।
এদিকে গতকাল বুধবার দিবাড়ত রাতে বালু উত্তোলনকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হলে প্রতিপক্ষের হামলায় শামীম গুরুতর আহত হন বলে তার পরিবার অভিযোগ করেন।তাকে মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতালে ভর্তির পর সেখানে তিনি মারা যান।ঘটনার পর থেকেই প্রতিপক্ষ শফি, বাবুল, মজনু, জনি ও জুয়েল গংরা পলাতক রয়েছে।
এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ এ কে এম মিজানুল হক মিজানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, পারিবারিক বিরোধকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটেছে।লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য টাঙ্গাইল মর্গে পাঠানো হয়েছে।মামলার প্রত্রিয়া চলছে।
অপর দিকে রাস্তা পারাপারের সময় ঘাতক ট্রাক চাপায় সাগর(১০) নামে এক স্কুল ছাত্র নিহত হয়েছে।তার পিতার নাম মো. সাজ্জাত হোসেন্বাড়ি বাড়ি মির্জাপুর উপজেলার ভাতকুড়া গ্রামে।হাইওয়ে পুলিশ সুত্র জানায়,আজ বৃহস্পতিবার সকালে সাগর তার মা শিউলী বেগমকে সঙ্গে নিয়ে নানার বাড়ি থলপাড়া থেকে নিজ গ্রাম ভাতকুড়া যাচ্ছিল। কুরনি বাস স্টেশনে মাহসড়ক পার হওয়ার সময় দ্রুতগামী একটি ট্রাক মা ও ছেলেকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই সাগর নিহত হয।গুরুতর অবস্থায় তার মাকে উদ্ধার করে কুমুদিনী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে গোড়াই হাইওয়ে থানার পুলিশ কর্মকর্তা কে এম কাউসার সাংবাদিকদের বলেন, ঘাতক ট্রাক আটক করা যায়নি।মামলা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *