রবিবার, মে ২৭, ২০১৮, ১১:৩২:৪৬ অপরাহ্ণ
Home » অন্যান্য » মির্জাপুরে ইটভাটার বিষাক্ত গ্যাসে পুড়ে গেছে জমির বোরো ধান কৃষকরা বিপাকে

মির্জাপুরে ইটভাটার বিষাক্ত গ্যাসে পুড়ে গেছে জমির বোরো ধান কৃষকরা বিপাকে

মীর আনোয়ার হোসেন টুটুল, স্টাফ রিপোর্টারঃ-
অপরিকল্পিত ও অবৈধ ভাবে গড়ে উঠা ইটভাটার কাল ধোয়া ও চিমনির বিষাক্ত গ্যাসে পুড়ে গেছে এলাকার প্রায় ৫শ হেক্টর জমির বোরো ধান।বোরো ধান ক্ষেত পুড়ে যাওয়ায় কয়েক শতাধিক কৃষকের মাথায় হাত পরেছে।স্থানীয় প্রশাসনও ঘটনা দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলে ক্ষতিগ্রস্থ্য কৃষকরা অভিযোগ করেছেন।টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার গোড়াইল ও আশপাশের কয়েকটি গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।আজ বুধবার ঘটনাস্থল ঘুরে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে।
উপজেলা কৃষি অফিস অফিস সুত্র জানায়, এ বছর মির্জাপুর উপজেলায় ২০ হাজার ৪০০শ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে।মৌসুমের শুরুতেই বীজ, সার ও কীটনাশকের দাম কম ও আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় কৃষকরা অতি উৎসাহ নিয়ে বোরো আবাদে ঝুঁকে পরে।পৌরসভা, মহেড়া, জামুর্কি, ফতেপুর, বানাইল, আনাইতারা, ওয়ার্শি, ভাদগ্রাম, ভাওড়া, বহুরিয়া, গোড়াই, লতিফপুর, আজগানা, তরফপুর ও বাঁশতৈল ইউনিয়নে বোরো আবাদের ভাল ফলন হলেও শেষ সময়ে এসে ইটভাটার বিষাক্ত গ্যাসে পুড়ে যাচ্ছে বোরো ধান ক্ষেত।ফলে এলাকার শতশত কৃষক ক্ষতিগ্রস্থ্য হয়ে চরম বিপাকে পরেছে।
গোড়াইল গ্রামের কৃষক নুর-ইসলাম(৪৫), জয়নাল মিয়া(৫০), কৃষানী করফুলী বেগম(৫৫), ও নুর ইসলাম সিদ্দিকী(৫৪) অভিযোগ করেন, বংশাই নদী সংলগ্ন এমএবি ইটভাটার বিষাক্ত গ্যাসে তাদের বোরো ধান ক্ষেত পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।তারা অভিযোগ করেন, গত কয়েক দিনের ব্যবধানে ইটভাটার বিষাক্ত গ্যাসে ক্ষেতের বোরো ধান পুড়ে গিয়ে ছনের মত হয়ে গেছে এবং কোন কোনে ক্ষেতের ধান ছিটা হয়ে গেছে।তারা একমুঠো ধানও বাড়িতে উঠাতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন।বোরো ধান ক্ষেত পুড়ে যাওয়ার পাশাপাশি এলাকার সবজি ক্ষেত, গাছপালা পুড়ে যাচ্ছে এবং গাছের ফুল, ফল ও পাতা ঝরে পরছে।গত কয়েক বছর ধরেই এমএবি ইটভাটার কাল ধোয়া ও বিষাক্ত গ্যাসের কারনে তাদের বোরো আবাদ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।প্রশাসনের কাছে বারবার আবেদন করেও তারা এর কোন প্রতিকার পাচ্ছে না। উপজেলার বাইমহাটি, ধেরুয়া, গোড়াই, সৈয়দপুর, আজগানা, তরফপুর ও বাঁশতৈল ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে ইটভাটার কাল ধোয়া ও বিষাক্ত গ্যাসের কারনে বোরো ধান পুড়ে চিটা হয়ে যাচ্ছে ও গাছপালা পুড়ে যাচ্ছে।ফলে শতশত কৃষক পরেছে চরম বিপাকে।
এ ব্যাপারে ইটভাটার মালিক আবু সাইদ বলেন, ইটভাটার বিষাক্ত গ্যাসে যে সব কৃষকের বোরো ক্ষেত পুড়ে ক্ষতিগ্রস্থ্য হয়েছে আলোচনা সাপেক্ষে তাদের ক্ষতিপুরন দেওয়া হবে।
উপজেলা কৃষি অফিসার মো. মশিউর রহমান বলেন, ইটভাটার বিষাক্ত গ্যাসে পুড়ে যাওয়া বোরো ক্ষেত পরিদর্শন করা হয়েছে।ক্ষতিগ্রস্থ্য কৃষকরা যাতে ক্ষতিপুরন পায় সে জন্য ইটভাটার মালিক, পরিবেশ অধিদপ্তরসহ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে নিয়ে কাজ করা হবে।ক্ষতিগ্রস্থ্য কৃষকদের ক্ষতিপুরনের দ্রুত ব্যবস্থা এবং এলাকা থেকে অবৈধ ইটভাটা বন্ধ করে দেওয়া হবে এমনটাই প্রত্যাশা এলাকাবাসির।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *