রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৮, ৩:২৩:১৯ পূর্বাহ্ণ
Home » অপরাধ » বিজ্ঞান শাখা না থাকলেও বিজ্ঞানাগারের মালামাল প্রদান ॥ নিম্নানের মাল সরবরাহ

বিজ্ঞান শাখা না থাকলেও বিজ্ঞানাগারের মালামাল প্রদান ॥ নিম্নানের মাল সরবরাহ

শফিকুল ইসলাম মিন্টু, গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি :
ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার ৪০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অত্যন্ত নি¤œমানের বিজ্ঞানাগার সামগ্রী প্রদান করা হয়েছে। তন্মধ্যে ৬টি মাদ্রাসার কোনটিতেই বিজ্ঞান শাখা বা বিজ্ঞানাগার নেই। রোববার (৮ জুলাই) এসব মালামাল সরবরাহের সময় উপজেলা পরিষদ চত্বরে মনে হয় যেন হাট বসেছে। ুনর্বাচিত প্রতিষ্ঠানের প্রধানগণ আসছেন আর কাঠের শেলফ ও স্টিলের আলমারী ভ্যানে তুলে নিচ্ছেন। তবে যারা মাল নিচ্ছেন তারা কেউই জানেন না এ মালের দাম কতো; সরবরাহ করার সময়ই নতুন শেলফই ফাটা, দুই-তিন ইঞ্চি’র নি¤œমানের কাঠ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে এসব শেলফ। স্টিলের আলমারীর গুনগত মানও ভালো নেই।
উপজেলার ৪০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ১১৭টি আইটেমের কোটি টাকার বিজ্ঞানাগারের মালামাল দেয়া হলেও এসব মালামালের গুনগত মান ভালো নেই বলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সূত্রে জানা গেছে। বিশাল প্রকল্পে এসব মালামাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রদান করা হলেও উপজেলা পর্যায়ে দায়িত্বশীল কোন কর্মকর্তাই নেই। বড়ভাগ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জানান, ওজন মাপার যন্ত্রটি নতুন অবস্থায়ও অচল।
মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর কর্তৃক বাস্তবানাধীন সেকেন্ডারী এডুকেশন সেক্টর ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রাম (সেসিপ)-২ এর আওতায় আরডিপিপি ক্রয়কৃত প্যাকেজ নং জিডি-৪৩ (ময়মনসিংহ অঞ্চল) সাইন্স ক্লাসরুম ফার্ণিচার (স্টিলের আলমারি ও কাঠের শেলফ) এর সংস্থাপন অনুযায়ী এ মালামাল বিতরণ করা হয়। বিতরণকাজে নিয়োজিত পারটেক্স কোম্পানীর শরিফুল ইসলাম জানান, এসব মালামালের মূল্য কতো তিনিও জানেন না।
শাহগঞ্জ স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো. আব্দুস শাকুর জানান, মাল পেয়েছি, মূল্য কতো জানা নেই। আজকের দেয়া আসবাবপত্র অত্যন্ত নি¤œমানের। কবুলেন্নেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আহাম্মদ হোসেন বলেন, এসব মালামালের তালিকা আছে, গুনগত মানের বিষয়টি কারো জানা নেই। শেলফ ও আলমারীটাও ভালো না।
অপরদিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও ইসলামাবাদ সিনিয়র মাদরাসার গভর্ণিং বডির সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ডা. হেলাল উদ্দিন আহাম্মেদ জানান, উপজেলায় ৬টি মাদরাসায় প্রায় ৩২লাখ টাকার বিজ্ঞানাগারের সামগ্রী দেয়া হয়েছে। অথচ একটি মাদরাসায়ও বিজ্ঞান বিভাগ চালু নেই। ইসলামাবাদ সিনিয়র মাদরাসায় বিজ্ঞান বিভাগ চালু আছে, সেই মাদরাসায় কোন মালামাল প্রদান করা হয়নি। সরকারের অর্থ অপচয় ও দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত কর্মকর্তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।
কাউরাট আকবর আলী দাখিল মাদরাসার সুপার মো. আল মামুন আকন্দ জানান, বিজ্ঞান শাখা খোলা হবে। বিজ্ঞানাগারের জন্য মাল পেয়েছি, তালিকানুয়াযী ৮টি আইটেম নেই। কিল্লাবোকাইনগর ফাযিল মাদরাসার অধ্যক্ষ মো. ছায়ীদুল হক জানান, মাল পাইছি, দাম কতো জানা নেই। তবে তালিকা আছে। ৯ম ও ১০ শ্রেণিতে বিজ্ঞান শাখা নেই।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষ অফিসার মো. সাইফুল আলম জানান, যেসব মাদরাসায় বিজ্ঞানাগারের মালামাল দেয়া হয়েছে, সেখানে বিজ্ঞান শাখা চালু করা হবে। তালিকা কেন্দ্রীয়ভাবে হয়েছে। সকল প্রতিষ্ঠানেই পর্যায়ক্রমে দেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *