শুক্রবার, জুন ২২, ২০১৮, ১১:২৬:২২ অপরাহ্ণ
Home » অন্যান্য » ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের যাত্রীদের জিম্মি করে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ দেখার কেউ নেই

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের যাত্রীদের জিম্মি করে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ দেখার কেউ নেই

মীর আনোয়ার হোসেন টুটুল, স্টাফ রিপোর্টারঃ-
ঈদকে সামনে রেখে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের যাত্রীদের জিম্মি করে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে।মন্ত্রীর নির্দেশ অমান্য করে বাস মালিক সমিতি ও পরিবহন শ্রমিক সংগঠনের এক শ্রেণীর দুনৃীতিবাজ নেতারা সিন্ডিকেট করে এই অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করে যাচ্ছে বলে যাত্রীরা অভিযোগ করেছে।আজ মঙ্গলবার ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে।
পরিবহন শ্রমিক ও যাত্রীরা জানায়, টাঙ্গাইল থেকে রাজধানী ঢাকার নন এসি ও সাধারণ যাত্রীবাহী বাসে জনপ্রতি ভাড়া ১২০ টাকা এবং এসি বাসে ভাড়া ২৫০ টাকা।কিন্ত ঈদকে সামনে রেখে কোন কারন ছাড়াই গত এক সপ্তাহ ধরে ভাড়া আদায় করে যাচ্ছে নন এসি যাত্রীবাহী বাসে ১২০ টাকার স্থলে ২০০-৩০০শ টাকা এবং এসি বাসে ২৫০ টাকার স্থলে ৪০০-৫০০টাকা।যাত্রীরা অতিরিক্ত ভাড়া দিতে অস্বীকার করলে তাদের বিভিন্ন ভাবে নাজেহাল হতে হচ্ছে বলে যাত্রীরা অভিযোগ করেছেন।টাঙ্গাইল থেকে রাজধানী ঢাকায় নিয়মিত যাতায়াত করেন চাকুরীজীবি যাত্রী মো. আশরফাক আহম্মেদ(৪৬) ও এ্যামিলি বেগম(৪০)।তারা অভিযোগ করেন পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা এবং হেল্পার ও সুপারভাইজারগন কোন কারন ছাড়াই জিম্মি করেতাদের কাছ থেকে অতিরিক্ত হারে ভাড়া আদায় করে নিচ্ছে।এ বিষয়ে কাউন্টারের সুপারভাইজার ও পুলিশকে ঘটনা জানালেও তারা কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না।ঢাকা-টাঙ্গাইল রোডের চলাচলকারী টাঙ্গাইল, নাগরপুর, ভুয়াপুর, গোপালপুর, মধুপুর, ধনবাড়ি, জামালপুর, শেরপুর, সরিষাবাড়ি ও ঘাটাইল রোডের যাত্রীরা পরিবহন শ্রমিকদের হাতে জিম্মি হয়ে পরেছে বেল অভিযোগ করেছে।
এ ব্যাপারে টাঙ্গাইল জেলা বাস মিনিবাস মালিক সমিতির মির্জাপুর শাখার সাধারণ সম্পাদক মো. রুবেল মিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ঈদ উপলক্ষে মহাসড়কে খরচ বেশী ও পুলিশকে অতিরিক্ত চাঁদা দিতে হয়।এছাড়া এক দিক থেকে যাত্রী পেলেও অপর দিক থেকে যাত্রী না পাওয়ায় বাস খালি আসতে হয়।খরচ পুষিয়ে নিতেই তাদের অতিরিক্ত ভাড়া নিতে হচ্ছে।
এ দিকে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে যাত্রীদের নিরাপত্তা, মহাসড়ক যানজটমুক্তসহ অতিরিক্ত ভাড়া যাতে আদায় না হয় এ বিষয়ে গতকাল সোমবার টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এক জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়।জরুরী সভায় সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) মো. নেছার উদ্দিন জুয়েল।সভায় গুরুত্বপুর্ন বিষয়ে সিন্ধান্ত হলেও বাস্তবে যাত্রীরা কোন সুফল পাচ্ছে না বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ এ কে এম মিজানুল হক মিজান বলেন,আমাদের দায়িত্ব মহাসড়ক যানজটমুক্ত ও যাত্রীদের নিরাপদ সেবা প্রদান।পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করে থাকেন পরিবহন শ্রমিকরা কোন যাত্রী যদি অতিরিক্ত ভাড়া আদায় ও হয়রানীর অভিযোগ করেন, তবে প্রয়োজনয়ি ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *