শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০১৮, ৮:২৫:২৫ অপরাহ্ণ
Home » জাতীয় » টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে নিখোঁজ সাংবাদিক উৎপল দাসের কোন সন্ধান মিলেনি॥ পুলিশ খবরটি নিশ্চিত করেছেন

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে নিখোঁজ সাংবাদিক উৎপল দাসের কোন সন্ধান মিলেনি॥ পুলিশ খবরটি নিশ্চিত করেছেন

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে নিখোঁজ সাংবাদিক উৎপল দাসের কোন সন্ধান মিলেনি॥ পুলিশ খবরটি নিশ্চিত করেছেন
মীর আনোয়ার হোসেন টুটুল, মির্জাপুর(টাঙ্গাইল)সংবাদদাতা
টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে নিখোঁজ সাংবাদিক উৎপল দাসের (২৯) কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি।আজ রোববার রাতে মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতাল, জামুর্কী সরকারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্র, মির্জাপুর থানা ও গোড়াই হাইওয়ে থানায় সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, উৎপল দাস নামে কোন সাংবাদিক হাসপাতালে ভর্তি হননি এমনকি পুলিশও এ ধরনের কোন তথ্য নিশ্চিত করতে পারেননি।
পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, পুর্ব পশ্চিম বিডি ডট নিউজের সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার সাংবাদিক উৎপল দাস গত ১০ অক্টোবর রাজধানী মতিঝিলের অফিস থেকে নিখোঁজ হন।উৎপলের পিতার নাম চিত্ত দাস, বাড়ি নরসিংদী জেলার রায়পুরা উপজেলার থানাহাটি গ্রামে।নিখোঁজের পর থেকে তার কোন সন্ধান না পেয়ে গত ২২ অক্টোবর একটি সাধারণ ডায়রী করেন পুর্ব পশ্চিম কর্তৃপক্ষ।আজ রোববার রাতে কয়েকটি বেসরকারী টেলিভিশনে ব্রেকিং নিউজ প্রচার হয় নিখোঁজের ১০ দিন পর টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে সাংবাদিক উৎপল দাস উদ্ধার, হাসপাতালে ভর্তি।এই খবর প্রচার হওয়ার পর তোলপার শুরু হয় টাঙ্গাইল জেলা ও মির্জাপুর উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় সাংবাদিকদের মধ্যে ।ব্রেকিং নিউজ প্রচারের পর থেকে কুমুদিনী হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ড, জামুর্কি সরকারী স্বাস্থ্য কমপ্লেকের বিভিন্ন ওয়ার্ডে ঘুরে এবং ডাক্তার ও নার্সদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, উৎপল দাস নামের কোন রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়নি।মির্জাপুর থানা ও গোড়াই হাইওয়ে থানায় খোঁজ নিয়েও উৎপল দাস নামের কোন ব্যক্তির সন্ধান পাওয়া যায়নি।
এ ব্যাপারে কুমুদিনী হাসপাতালের পরিচালক ডা. দুলাল চন্দ্র পোদ্দারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, উৎপল দাস নামে কোন রোগী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নেই। এ ব্যাপারে উপজেলার জামুর্কি সরকারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্েরর স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচও) ডা. মো. শাহারিয়ার সাজ্জাত বলেন, তাদের হাসপাতালেও উৎপল দাস নামে কোন রোগী ভর্তি নেই।কে বা কারা এমন তথ্য দিয়েছেন তা তাদের জানা নেই।
মির্জাপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ কে এম মিজানুল হক মিজান ও গোড়াই হাইওয়ে থানার (ওসি) মো. খলিলুর রহমান পাটোয়ারী বলেন, উৎপল দাস নামের কোন সাংবাদিকের সন্ধান তারা এখন পর্যন্ত পাননি।কোন তথ্যের ভিত্তিতে কিছু ইলেকট্রনিক্্র মিডিয়া এমন একটি মিথ্যা ও বানোয়াট খবর পরিবেশন করেছেন তা তাদের জানা নেই।
এদিকে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইসরাত সাদমীন ও সহকারী কমিশনার(ভুমি) মো. আজগর হোসেন বিভিন্ন হাসপাতালসহ গুরুত্বপুর্ন পয়েন্টে খোঁজ খবর নিতে শুরু করেছেন বলে জানিয়েছেন।রাতে এ রিপোর্ট পাঠানো পর্যন্ত উৎপল দাসের কোন সন্ধান পুলিশ নিশ্চিত করতে পারেননি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *