সোমবার, ডিসেম্বর ১১, ২০১৭, ১:৩৩:২৯ অপরাহ্ণ
Home » জাতীয় » টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে এনজিওর কর্মকর্তা ও সুদখোর মাহজনদের চাপে বিষপানে দিনমজুর কৃষকের আতœহত্যা

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে এনজিওর কর্মকর্তা ও সুদখোর মাহজনদের চাপে বিষপানে দিনমজুর কৃষকের আতœহত্যা

মীর আনোয়ার হোসেন টুটুল, স্টাফ রিপোর্টারঃ-
কয়েকটি এনজিও ও মহাজনদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে নির্ধারিত সময়ে পরিশোধ করতে নানা পারায় এনজিওর মালিক-কর্মকর্তা এবং সুদখোর মহাজনদের চাপ ও হুমকিতে নারায়ন ঘোষ(৪৫) নামে এক দিনমজুর কৃষক বিষপানে আতœহত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।ঘটনার পর এলাকায় চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার দুই নম্বর জামুর্কি ইউনিয়নের উফুলকী গ্রামে এ অমানবিক ঘটনাটি ঘটেছে।আজ বৃহস্পতিবার উফুলকী গ্রামে খোঁজ নিয়ে এ ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে।ক্ষুব্দ এলাকাবাসি ও নিহত নারায়ণ ঘোষের অসহায় পরিবার সুদখোর এনজিওর মালিক-কর্মকর্তা এবং স্থানীয় সুদখোর মহাজনদের গ্রেফতারসহ দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন।
আজ বৃহস্পতিবার এলাকাবাসির মধ্যে মামুন, সোনা মিয়াসহ বেশ কয়েকজন জানান, উফুলকী গ্রামের মেঘলাল ঘোষের পুত্র নারায়ণ ঘোষ(৪৫) ও তার স্ত্রী লক্ষী ঘোষ(৪০) এলাকার শান্তিপ্রিয় সংস্থা, গ্রামীণ সঞ্চয় ও ঝৃণদান সমবায় সমিতি এবং সোস্যাল ডেভেলপমেন্টসহ আরও কয়েকটি এনজিও এবং স্থানীয় সুদখোর মহাজনদের কাছ থেকে চড়া সুদে ঝৃণ নেয়।বিভিণœ এনজিও মহাজনদের কাছ থেকে ঝৃণ নিয়ে নারায়ণ ঘোষ ও তার স্ত্রী লক্ষী ঘোষ কৃষিকাজসহ বিভিন্ন ব্যবসার উদ্যোগ নেন।কিন্ত সংসারের চাপে ব্যবসায় দিন দিন লোকসান হতে থাকে।একদিকে সংসার পরিচালনা টানাপোরেন ও অপরদিকে ঝৃণের টাকা পরিশোধের জন্য বিভিন্ন এনজিওর মালিক ও কর্মকর্তা এবং স্থানীয় সুদখোর মহাজনরা নারায়ন ঘোষ ও তার স্ত্রীকে চাপ সৃষ্টি করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঝৃণের টাকা পরিশোধে ব্যর্থ ও সুদখোরদের চাপ সহ্য করতে না পেরে নারায়ন ঘোষ গত রবিবার বিষপানে আতœহত্যা করে।ঘটনা জানাজানি হলে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের সহযোগিতায় ঐ গ্রামের মেম্বার ও মাতাব্বরগন মির্জাপুর থানায় লিখিত দিয়ে নারায়ন ঘোষের লাশ মাটি চাপা দেয়।সুদখোরদের ভয়ে নিরীহ ঐ পরিবারের পক্ষে থানায় কোন অভিযোগ করতে সাহস পায়নি বলে অভিযোগ উঠে।
এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানায় যোগাযোগ করা হলে ডিউটি অফিসার বলেন, এ বিষয়ে লিখিত কোন অভিযোগ আসেনি।অভিযোগ এলে তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *