শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৮, ১০:৪১:০২ অপরাহ্ণ
Home » সারাদেশ » বরিশাল » ঝালকাঠিতে ফার্মেসী মালিকদের এমআরপি বাণিজ্য

ঝালকাঠিতে ফার্মেসী মালিকদের এমআরপি বাণিজ্য

ঝালকাঠি প্রতিনিধি:

ঝালকাঠিতে ফার্মেসী মালিকরা এমআরপি (মার্কেট রিটেল প্রাইজ) সিন্ডিকেট করে ক্রেতাদের কাছ থেকে নির্ধারিত মূল্যে ঔষধ বিক্রির নামে অধিক মুনাফা হাতিয়ে নিচ্ছে। বিক্রেতারা কমিশন না দিয়ে নামী-দামি কোম্পানীর ছাড়াও অখ্যাত, ভেজাল ও নিন্মমানের ঔষধ যাচ্ছেতাই মূল্যে কিনতে বাধ্য করছে ক্রেতাদের। এটা সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে চলে যাচ্ছে। পাশাপাশি রমরামা এমআরপি বাণিজ্যে লাভবান হচ্ছে ঔষধ ব্যবসায়ীরা।

 

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, কেমিস্ট অ্যান্ড ড্রাগিষ্ট সমিতি, ঝালকাঠি জেলা শাখা গত ২৭ ডিসেম্বর স্থানীয় একটি কমিউনিটি সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যেমে বাজার নির্ধারিত (এমআরপি) মূল্যে সকল ফার্মেসীতে ঔষধ বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয়, যা গত ১ জানুয়ারি থেকে কার্যকর করা হয়। এতে সাধারণ ক্রেতারা বিপাকে পরে। বিশেষ করে যে সকল পরিবারে ডায়াবেটিকস, কিডনি ও হার্টের রোগী রয়েছে তাদের ঔষধ কিনতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। যেখানে আগে ১০ হাজার টাকার ঔষধ কিনলে প্রায় ৫ শত টাকা কমিশন পাওয়া যেত সেখানে বর্তমানে কোনো কমিশন দেয়া হচ্ছে না। এমনকি অখ্যাত কোম্পানীর নিম্নমানের ঔষধের গায়ে লেখা মূল্যেই বিক্রি করছে ফার্মেসীগুলো। অথচ এ ধরণের ঔষধে প্রায় ৫০ ভাগ কমিশন থাকে। এভাবে ক্রেতাদের জিম্মি করে ফার্মেসী মালিকরা এমআরপি সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ফায়দা লুটে নিচ্ছে।

 

সম্প্রতি বিভিন্ন ফার্মেসীতে গিয়ে দেখা যায়, সরকার প্যারাসিটামল, হিস্টাসিন, ডাইক্লোফেনাকসহ ২৫টি ঔষেধের দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে। কিন্তু ঝালকাঠি ঔষধ ব্যবসায়ীরা একে পুঁজি করে সব ধরণের ঔষধ বিক্রির ক্ষেত্রে সরকার নির্ধারিত মূল্যে ঔষধ বিক্রির কথা প্রচার করছে।

 

ওদিকে ঝালকাঠি কেমিস্ট অ্যান্ড ড্রাগিষ্ট সমিতির সভাপতি একজন আইনজীবী। তার নিজের কোনো ফার্মেসী না থাকলেও সভাপতি পদে থেকে তিনি এসব অযৌক্তিক সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন।

 

এ বিষয়ে ঝালকাঠি কেমিস্ট অ্যান্ড ড্রাগিষ্ট সমিতির সভাপতি মুন্সি আবুল কালাম আযাদ বলেন, বাজারে কোম্পানী নির্ধারিত মূল্যে ঔষধ বিক্রি করা আমাদের সমিতির কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত। তবে কেউ নিম্নমানের ঔষধ বিক্রি করলে তার দায় সমিতি নেবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *