রবিবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৮, ৮:৪৪:২৪ পূর্বাহ্ণ
Home » ফেইসবুক কর্ণার » চালের দাম রেকর্ড হওয়ায় নিম্ন আয়ের মানুষ দিশেহারা

চালের দাম রেকর্ড হওয়ায় নিম্ন আয়ের মানুষ দিশেহারা

সৈয়দ আখলাক উদ্দিন মনসুর শায়েস্তাগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ থানার ইউনিয়ন ও পৌরসভার বিভিন্ন হাট বাজারে চালের বাজারে বস্তা প্রতি দাম বেড়েছে ৭শ টাকা। বাজারের সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় চালের বাজার দিন দিন অস্থিতিশীল হয়ে উঠেছে। গত এক থেকে দেড় সপ্তাহের ব্যবধানে বস্তা প্রতি বেড়েছে ৭ শ থেকে সাড়ে ৭ শ টাকা। চালের দাম বাড়ার ফলে সবচেয়ে বিপাকে পড়েছেন নিম্ন-মধ্যবিত্ত শ্রেণির লোকজন। এমতাবস্থায় বাজার মনিটরিং করার জোর দাবি জানিয়েছেন সাধারণ ভুক্তভোগীরা। অপরদিকে, ব্যবসায়ীরা বলছেন, শায়েস্তাগঞ্জের চাল ব্যবসায়ীদের কারসাজিতেই বাজার ব্যবস্থাকে অস্থিতিশীল করে তুলছে অসাধু একটি চক্র। বিদেশ থেকে লাখ লাখ টন চাল আমদানি করা হলেও চালের বাজারে কোনো প্রভাব পড়ছে না। কোনো ভাবেই নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না চালের বাজার। সরকার কর্তৃক নির্ধারিত মূল্যে বিতরণের চাল আসলেও তা চলে যাচ্ছে চালবাজদের কবলে। চাল উৎপাদনে বাংলাদেশ স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়ার পরও অসাধু চাল ব্যবসায়ীর কারণেই চালের বাজারের এ অবস্থা বলে মনে করছেন অনেকেই। বস্তা প্রতি চালের দাম বাড়ার কারণে খুচরা বাজারেও এর প্রভাব পড়েছে। জানা যায়, গত এক থেকে দেড় সপ্তাহ ধরে হঠাৎ করেই চালের বাজার অস্থিতিশীল হয়ে উঠেছে। দিন যত যাচ্ছে চালের দামও তত বাড়ছে। গতকাল শায়েস্তাগঞ্জ থানার দাউনগর বাজার, পুরান বাজার, আলীগঞ্জ বাজার, বাছিরগঞ্জ বাজার, শাহজীবাজার(সুতাং), অলীপুর বাজার ও সাধুর বাজার এলাকার চালের বাজারসমূহ সরজমিনে ঘুরে দেখা যায়, চালের দোকানগুলোতে আগের মত ভিড় নেই।
দাম বেশি হওয়ার ফলে ক্রেতারা খুচরা ভাবে চাল কিনে নিচ্ছে। তবে চিকন চালের তুলনায় মোটা চালের দাম কম হওয়ায় ক্রেতারা তাই ক্রয় করছে। ২৯ জাতের চাল গত সপ্তাহে ২১শ টাকা থেকে ২২শ টাকা ধরে বিক্রি হলেও এ সপ্তাহ বিক্রি হচ্ছে ২৮শ থেকে ২৯শ টাকায়, নাজির শাইল গত সপ্তাহে প্রতি বস্তা বিক্রি হচ্ছে ২৭শ টাকা করে কিন্তু এ সপ্তাহে বিক্রি হচ্ছে ৩৫শ টাকা ধরে, একই ভাবে মিনিকেট চাল বিক্রি হচ্ছে ২৮শ থেকে ৩৩শ টাকা করে, মোটা চাল প্রতি বস্তা বিক্রি হচ্ছে ২২শ টাকা থেকে ২৩শ টাকা করে। চাল ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জের বেশ কিছু ব্যবসায়ীরা শায়েস্তাগঞ্জে সরকারী খাদ্য গুদাম ও এদের মধ্যে ব্যবসায়ী নিজস্ব ব্যক্তিগত গুদামে চাল মজুত রাখার কারণেই চালের দাম বেড়েছে। এমতাবস্থায় বাজার ব্যবস্থা ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে মনিটরিং করার কথা বলেছেন সাধারণ ভুক্তভোগীরা।#

//এল//

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *