শনিবার, আগস্ট ১৮, ২০১৮, ১১:৪৮:৪৫ অপরাহ্ণ
Home » জাতীয় » ঋণনির্ভর বাজেট জনগণের উপকারে আসবে না: বিএনপি

ঋণনির্ভর বাজেট জনগণের উপকারে আসবে না: বিএনপি

অনলাইন ডেক্স :
বর্তমান সরকারের বাজেট দেওয়ার এখতিয়ার নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি নেতারা। দলটির নেতারা প্রস্তাবিত বাজেটকে নির্বাচনের বছরে ভোট আকর্ষণের বাজেট হিসেবে মনে করছেন।

বাজেট ঘোষণার পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তারা বলেছেন, এই বাজেট জনগণের স্বার্থে নয়। সরকার ঋণনির্ভর একটি বাজেট দিয়েছে। এতে জনগণের ওপরে ঋণের বোঝা বেড়ে যাবে। এই বাজেট জনগণের কোনো উপকারে আসবে না। এজন্য তারা এই বাজেটকে প্রত্যাখ্যান করেছেন। তবে দলের পক্ষ থেকে বাজেট নিয়ে আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানানো হয়নি।

বৃহস্পতিবার সংসদে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বাজেট উপস্থাপনের পর বিএনপির পক্ষ থেকে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ ও ড. আবদুল মঈন খান এরকম প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন।

খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, এত বড় ঘাটতি একটা বিশাল বাজেট দেওয়া হয়েছে প্রতারণা করে শুধু জনগণের থেকে ভোট পাওয়ার জন্য। এটি নির্বাচনী বাজেট, ভোট আকর্ষণের বাজেট, জনগণের স্বার্থে বাজেট নয়।

মওদুদ আহমদ বলেন, ব্যাংকিং খাত, পূঁজিবাজার, সামাজিক বিভিন্ন খাতে যে নৈরাজ্য চলছে তা নিরসনে প্রস্তাবিত বাজেটে কোনো দিকনির্দেশনা নেই। এটি একটি ফাঁকা বাজেট। বাজেটের যে আকার ও বিশালতা দেখানো হয়েছে এর পেছনে দুরভিসন্ধি আছে। সত্যিকার অর্থে এই বাজেট নিম্ন আয়ের মানুষ, দরিদ্র, খেটে খাওয়া লোকদের কোনো উপকারে আসবে না।

পল্টনের মুক্তি ভবনে বৃহস্পতিবার ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক কল্যাণ পার্টির আয়োজনে ইফতার অনুষ্ঠানে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর দলের তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, বেশ কিছু পণ্যের ওপরে আমদানি পর্যায়ে শুল্ক্ক, সম্পূরক শুল্ক, রেগুলেটরি ডিউটি, ভ্যাট বৃদ্ধি করা হয়েছে। তৈরি পোশাক শিল্পে ভ্যাট বাড়ানো হয়েছে, অনেক পণ্যের শুল্ক্ক বৃদ্ধি করা হয়েছে। ১১০০ ধরনের আমদানি পণ্যের ওপরে ভ্যাট বৃদ্ধি করা হয়েছে। ই-কমার্সকে ভ্যাটের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। অন্যদিকে করপোরেট ট্যাপ কমানো হয়েছে। এর ফলে ধনী আরও ধনী এবং দরিদ্র আরও দরিদ্র হবে।

আর্থিক খাতের দুরবস্থা থেকে উত্তরণে প্রস্তাবিত বাজেটে কোনো ‘দিকনির্দেশনা’ নেই বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

প্রস্তাবিত বাজেটকে ‘ঋণনির্ভর’ উল্লেখ করে তিনি বলেন, এর ফলে জনগণের ওপর ঋণের বোঝা বাড়বে এবং দেশে অভ্যন্তরীণ বিনিয়োগ ও ব্যবসা-বাণিজ্য কমে যাবে।

পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিমের সভাপতিত্বে মহাসচিব এম এম আমিনুর রহমানের পরিচালনায় ইফতারে ২০ দলীয় জোট ও বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতারা অংশ নেন।

জাতীয় প্রেস ক্লাবে ‘অর্ণব’ সংগঠনের উদ্যোগে বর্তমান সরকার আমলে ‘গুম-খুনে’ নিহত নেতাকর্মীর পরিবারকে ঈদ উপহার অনুষ্ঠানে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ বলেন, প্রস্তাবিত বাজেট বিশাল একটি বেলুন, নীল রঙের বেলুন। কিন্তু এর ভেতরে কিছু নাই, ফাঁকা। এটি একটি গতানুগতিক বাজেট।

মওদুদ বলেন, সরকার একটা আপসকামী বাজেট দিয়েছে নির্বাচনকে সামনে রেখে। এ সরকারের বাজেট দেওয়ার অধিকার আছে কি-না সেটাও একটা বিরাট প্রশ্ন। কারণ এই সংসদের ১৫৪ জন সদস্য বিনা ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন। তারা জনগণের প্রতিনিধিত্ব করেন না।

নির্বাচনী বাজেট দিয়ে সরকার ‘জনগণকে ভোলাতে পারবে না’ বলেও মন্তব্য করেন তিনি। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অর্ণবের সভানেত্রী বীথিকা বিনতে হোসেইন।

বাজেটকে ভুয়া বলে আখ্যায়িত করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান। তিনি বলেছেন, এই সরকারের বাজেট দেওয়ার কোনো এখতিয়ার নেই। এই বাজেট জনগণকে শোষণ করছে। এই বাজেট দিয়ে কখনও বাংলাদেশের মানুষের কল্যাণ হবে না।

রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কবরে বৃহস্পতিবার পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে তিনি এ সব কথা বলেন।

ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি, নবগঠিত বিভিন্ন থানা ও ওয়ার্ডের নেতৃবৃন্দকে নিয়ে এ পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন ড. আবদুল মঈন খান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *