শুক্রবার, জুলাই ২০, ২০১৮, ১০:৫১:৫০ অপরাহ্ণ
Home » সারাদেশ » চট্টগ্রাম » উখিয়া-টেকনাফ সড়কজুড়ে অবৈধ হাট বাজার

উখিয়া-টেকনাফ সড়কজুড়ে অবৈধ হাট বাজার

উখিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি:

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের পুঁজি করে বাজার ইজারাদার নামধারী কতিপয় প্রভাবশালী ব্যক্তি উখিয়া-টেকনাফ সড়কের দু’পাশে অবৈধভাবে হাটবাজার বসিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা। সড়কের উপর হাটবাজার বসার কারণে সৃষ্টি হয়েছে মারাত্মক যানজট। ফলে পথচারী স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসাগামী ছাত্রছাত্রীদের চলাচল অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সংগ্রাম কমিটির নেতৃবৃন্দ সড়ক দুর্ঘটনার ঝুঁকি এড়াতে সড়কের দু’পাশে ট্রাফিক পুলিশ মোতায়েনের জন্য মন্ত্রী পরিষদ সচিব বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছে।

উখিয়া উপজেলা পরিষদ সূত্রে জানা গেছে, প্রতি বছর উখিয়ার ৮টি হাটবাজার নিলাম দেয়া হয়। তবে এসব হাটবাজারের জন্য নির্ধারিত ৮টি স্থান রয়েছে। যেখান থেকে ইজারাদার ক্রেতা-বিক্রেতাদের নিকট সরকার নির্ধারিত টোল আদায় করতে পারবে।

স্থানীয় ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, সংশ্লিষ্ট ইজারাদারেরা তাদের দোকানের সামনে ত্রাণের হাটবাজার বসিয়ে অতিরিক্ত ফায়দা লুটার কারণে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা ব্যবসায়ীক ক্ষেত্রে মারাত্মকভাবে আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে। উপজেলা প্রশাসন নিরাপদ পথচারী চলাচলের সুবিধার্থে সড়কের উভয়পাশে প্রতিষ্ঠিত অবৈধ হাটবাজার উচ্ছেদ করলেও কয়েকদিন যেতে না যেতেই ফের একই স্থানে হাটবাজার বসতে দেখা গেছে।

রাজাপালং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী জানান, জনগুরুত্বপূর্ণ সড়কের উভয়পাশে গাড়ি পার্কিং ও ত্রাণের হাটবাজার বসার কারণে স্থানীয়দের পোহাতে হচ্ছে নানা দুর্ভোগ। ঝুঁকি নিয়ে ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আসা-যাওয়া করতে হচ্ছে।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সংগ্রাম কমিটির নেতা সাংবাদিক নুর মোহাম্মদ সিকদার অভিযোগ করে জানান, রোহিঙ্গারা এখানে আসার পর থেকেই উখিয়া-টেকনাফ সড়কটি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। বেড়েছে বিভিন্ন ধরনের বাণিজ্যিক যানবাহনের পাশাপাশি মোটরসাইকেলে সংখ্যা। যে কারণে উখিয়া-টেকনাফ সড়ক এখন মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। প্রতিদিন ঘটছে দুর্ঘটনা।

এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে উখিয়া জিপ-মাইক্রো মালিক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক নুরুল আমিন সিকদার ভূট্টো জানান, রোহিঙ্গার পাশাপাশি তাদের মানবিক সেবা দেয়ার নামে এখানে অসংখ্য চাকরিজীবী স্থান করে নিয়েছে।

এ প্রসঙ্গে আলাপ করা হলে উখিয়া থানার ওসি মো. আবুল খায়ের জানান, রোহিঙ্গাদের কারণে যানবাহনের সংখ্যা বেড়েছে। পাশাপাশি ভিআইপিদের নিরাপদ রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শনে দায়িত্বপালন করতে পুলিশকে হিমশিম খেতে হচ্ছে। এই এলাকার বেশিরভাগ যানবাহনের কোনো বৈধতাও নেই।

উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নিকারুজ্জামান চৌধুরী জানান, কুতুপালং এলাকায় রাস্তার উপর যে সমস্ত হাটবাজার বসেছে তা বেশ কয়েকবার উচ্ছেদ করা হয়েছে।

জনস্বার্থে সড়কের উপর অবৈধভাবে বসানো হাটবাজারের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট ইজারাদারের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *