সোমবার, আগস্ট ২০, ২০১৮, ৭:০০:১৩ অপরাহ্ণ
Home » অপরাধ » ঈশ্বরগঞ্জ গরিবের চাল তুলে নিল ‘জালিয়াত’

ঈশ্বরগঞ্জ গরিবের চাল তুলে নিল ‘জালিয়াত’

অনলাইন ডেস্ক :

দরিদ্র মানুষের মাঝে ঈদের আনন্দ ছড়িয়ে দিতে প্রতিবছর সরকারিভাবে ভিজিএফের চাল তু্লে দেওয়া হয়। দুস্থ মানুষ ঈদের আগে চাল নিয়ে ঈদ আনন্দ উদযাপন করেন। কিন্তু ঈদ আনন্দের ভিজিএফের চালে এবার থাবা বসিয়েছে জালিয়াত। জালিয়াতির মাধ্যমে তুলে নেওয়া হয়েছে প্রায় দুই মেট্রিকটন চাল। এমন ঘটনা ঘটেছে ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে।

উপজেলার ১১ টি ইউনিয়ন ও পৌরসভায় মঙ্গলবার থেকে ঈদ উপলক্ষে বিশেষ ভিজিএফ বিতরণের কার্যক্রম শুরু হয়। বুধবার উপজেলার মগটুলা ইউনিয়নে প্রায় সাত হাজার দুস্থ কার্ডধারীর মাঝে ভিজিএফ বিতরণ শুরু হয়।

ওই ইউনিয়নের জন্য প্রায় ৩২ মেট্রিকটন চাল বরাদ্দ ছিলো। কিন্তু বুধবার চাল বিতরণ কার্যক্রম শুরুর প্রথম দিন দুস্থদের নামের কার্ড জালিয়াতি করে প্রায় দুই মেট্রিকটন চাল তুলে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় কয়েক ব্যক্তির বিরুদ্ধে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দুস্থদের জন্য ঈদ বিশেষ ভিজিএফের চাল বিতরণের আগে জাতীয় পরিচয় পত্র ব্যবহার করে কার্ড তৈরি করা হয়। সেই কার্ড কম্পিউটারে স্ক্যান করে নতুন কার্ড তৈরি করে একটি চক্র। সেই কার্ড ব্যবহার করে লোকজন দিয়ে প্রায় দুই মেট্রিকটন চাল তুলে নেওয়া হয়েছে।

বিষয়টি টের পেয়ে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অন্য সদস্যরা অনুসন্ধান শুরু করেন। পরে জানতে পারেন স্থানী জাতীয় পার্টির নেতা স্বপন মিয়ার নামে দলীয়ভাবে ২০ টি কার্ড বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তিনি তার চেয়ে বেশি কার্ডধারী পাঠিয়ে চাল তু্লে নেন।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মো. আসকর আলী বলেন, দলের পক্ষ থেকে স্বপনকে ২০ টি কার্ড দেওয়া হয়। কিন্তু সে লোকজন পাঠিয়ে অনেক চাল তুলে নেয়। পরে অনুসন্ধান করে তিনি জানতে পারেন ধিতপুর বাজারের স্বপনের মামাতো ভাই তানজিলের দোকান থেকে করা হয়েছে কার্ড জালিয়াতি। পরে তারা তল্লাশি চালিয়ে স্বপনের খালু ধীতপুর গ্রামের আবদুস সামাদের বাড়িতে গিয়ে বিপুল পরিমাণ চাল পান।

এদিকে দুস্থদের চাল জালিয়াতির মাধ্যমে তুলে নেওয়ার খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এলিশ শরমিন ঘটনাস্থলে ছুটে যান। অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত স্বপনের খালু সামাদের বাড়ি, মামা বাচ্চু মিয়ার দোকান ও মামুনের গ্যারেজের তালা ভেঙে প্রায় ৩২ বস্তা (৯৬০ কেজি) চাল উদ্ধার করা হয়। জালিয়াতির মাধ্যমে চাল তু্লে নেওয়ার বিষয়টি টের পাওয়ার পরই পালিয়ে যায় জড়িত ব্যক্তিরা।

মগটুলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বদরুজ্জামান মামুন বলেন, সুষ্ঠু ভাবে চাল বিতরণ শুরু করলেও কার্ড জালিয়াতি করে প্রায় ২ মেট্রিকটন চাল তুলে নিয়ে গেছে স্বপন ও তার চক্রটি। চাল তু্লে নেওয়ার বিষয়টি টের পেয়েই উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষককে জানানো হয়।

ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এলিশ শরমিন বলেন, দুস্থদের চাল জালিয়াতির মাধ্যমে তুলে নেওয়ার খবর পেয়ে অভিযান চালিয়ে কিছু চাল উদ্ধার করা হয়। জড়িত সবাই পলাতক রয়েছে। এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *