রবিবার, আগস্ট ১৯, ২০১৮, ১২:১৯:২৫ পূর্বাহ্ণ
Home » আন্তর্জাতিক » অনুপ্রবেশকারীদের ভারতে রাখবে, না ফেরত পাঠাবে?’

অনুপ্রবেশকারীদের ভারতে রাখবে, না ফেরত পাঠাবে?’

 

অনলাইন ডেস্ক :
পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বারবার বলেছেন, আসামের এনআরসি থেকে ৪০ লাখ বাঙালিকে বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্তকে তিনি মেনে নেবেন না। এ নিয়ে দেশজুড়ে তাঁর আন্দোলন চলছে।মমতা চান, কেন্দ্রীয় বিজেপি সরকারের এই এনআরসি নিয়ে গৃহীত সিদ্ধান্ত অবিলম্বে বাতিল করা হোক। মমতার এই দাবিকে এখনো আমলে নেয়নি বিজেপি।
বিজেপির পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, প্রয়োজনে পশ্চিমবঙ্গ থেকে অনুপ্রবেশকারী তাড়াতে এই রাজ্যেও তাঁরা এনআরসি চান। এ নিয়ে বিজেপি তাদের আন্দোলনও অব্যাহত রেখেছে গোটা পশ্চিমবঙ্গে। অন্যদিকে, আসাম সরকারও জানিয়ে দিয়েছে, এনআরসি বাতিলের কোনো প্রশ্ন নেই। এনআরসির চূড়ান্ত প্রতিবেদন তো বের হয়নি। এ জন্য যাঁদের নাম বাদ গেছে, তাঁদের নাম তোলার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে শুনানির সময় দেওয়া হয়েছে।ঊঢ়ৎড়ঃযড়সধষড়
আসামের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়াল ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মধ্যে আসামের এই ইস্যু নিয়ে চলছে দড়ি টানাটানি। কোনো পক্ষই এই ইস্যুতে চলমান আন্দোলনে ইতি টানতে চাইছে না। আসাম সরকার মমতার বিরুদ্ধে চারটি মামলা করেছে। কলকাতায়ও আসামের মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে তিনটি মামলা হয়েছে। এতে এখন এই দুই মুখ্যমন্ত্রীর মধ্যে আইনি লড়াই চলছে।বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ অনুপ্রবেশকারীদের তাড়ানোর লক্ষ্যে এখনো অনড়। তিনি গোটা দেশ থেকে, বিশেষ করে অবৈধ বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীদের তাড়াতে চাইছেন।গতকাল রোববার অমিত শাহ উত্তর প্রদেশের চন্দাউলিতে আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে বলেন, কংগ্রেস, বহুজন সমাজ পার্টি ও সমাজবাদী পার্টিকে স্পষ্ট করতে হবে, তারা ভারত থেকে বাংলাদেশের অনুপ্রবেশকারীদের তাড়াবে, না এ দেশে রাখবে? তিনি চাইছেন, তিন দল এটি স্পষ্ট করুক। আসামের নাগরিক নিবন্ধন থেকে ৪০ লাখ বাঙালির নাম বাদ দেওয়ার ঘটনায় ক্ষুব্ধ ওই তিন দল।তিন দল দাবি তুলেছে, এভাবে ভারতে দীর্ঘদিন ধরে বসবাসকারী মানুষের নাম বাদ দেওয়া যায় না। এরই পরিপ্রেক্ষিতে অমিত শাহ ওই তিন দলের কাছে জানতে চেয়েছেন, তারা অনুপ্রবেশকারীদের তাড়াবে, নাকি এই দেশে রাখবে? অমিত শাহ এদিন বলেছেন, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশেই আসাম সরকার এই নাগরিক নিবন্ধনের মাধ্যমে তালিকা তৈরি করেছে। সুপ্রিম কোর্ট বলেছেন, নাগরিক তালিকায় যাঁদের নাম ওঠেনি, তাঁদের যেন কোনোভাবে হেনস্তা না করা হয়। কেননা, এটি খসড়া তালিকা। চূড়ান্ত তালিকা এখনো প্রকাশ করা হয়নি। যদিও কংগ্রেস বলেছে, বিজেপি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে তৈরি করেছে এই নাগরিক পঞ্জি বা এনআরসি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *